1. sarifhafiz48@gmail.com : livenewsdesk desk : livenewsdesk desk
  2. mehedihasan.mhs078@gmail.com : Arif Molla : Arif Molla
  3. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
  4. livenewsbd24@gmail.com : Mehedi Hasan : Mehedi Hasan
শিশুর নাম রাখা হলো ‘সিত্রাং’ - Livenews24
বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কাপড় কিনতে ক্রেতা সেজে এসে কাপড় চুরি, ধরা পড়ে হলো জেল বিএনপি রাজনৈতিক দল নয়, পাকিস্তানের এজেন্ট: শেখ সেলিম ‘কৃষক আমাদের জাতির মেরুদণ্ড’- ড.আবদুস সোবহান গোলাপ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হলো ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে- শাজাহান খান আমার মনে হয় বিরোধীরা চোখ থাকতেও অন্ধ জানুয়ারি থেকে ব্যাংকে ডলার সংকট থাকবে না: সালমান এফ রহমান বিরামপুরে বিশ্ব এন্টিমাইক্রোবিয়াল সচেতনতা সপ্তাহ পালিত খবর প্রকাশের পর পলাশবাড়ীতে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরীর কারখানা ভেঙে গুড়িয়ে দিলেন প্রশাসন মেসির জন্য অপেক্ষা ও প্রার্থনা কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যানের সংঘর্ষ, বোমার আঘাতে ওসিসহ আহত ১০ সশস্ত্র বাহিনীর শহীদদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা সশস্ত্র বাহিনীর শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতির শ্রদ্ধা জাতির আস্থার প্রতীক হিসেবে গড়ে উঠেছে সশস্ত্র বাহিনী সশস্ত্র বাহিনী জাতির গর্ব ও আস্থার প্রতীক: রাষ্ট্রপতি

শিশুর নাম রাখা হলো ‘সিত্রাং’

  • প্রকাশিত : বুধবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২২
  • ৩৩ শেয়ার এবং সংবাদটি পড়েছেন।

অনলাইন ডেস্ক।।

চারদিকে তখন দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি। জোয়ারে বেড়িবাঁধে পানি ছুঁই ছুঁই। পানিতে ডুবে গেছে ঘর। কোনো রকম চৌকিতে ঠাঁই নিয়েছেন অন্তঃসত্ত্বা ফারজানা আক্তার (৩৩)।

নোয়াখালীতে তখন ৭ নম্বর বিপদ সংকেত। সবাই ছুটছেন নিরাপদ আশ্রয়ে। এমন দুর্যোগের মধ্যে গত রোববার (২৩ অক্টোবর) রাতে প্রসব বেদনা ওঠে ফারজানার। জোয়ারের পানিতে চৌকি ডুবে যাবে এমন সময় ধাত্রীর সহযোগিতায় জন্ম নিলো এক কন্যা সন্তান। পরক্ষণেই নাম রাখা হলো জান্নাতুল ফেরদৌস সিত্রাং।

বুধবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে সেই রাতের দুঃসহ স্মৃতির কথা খুলে বলেন ফারজানা আক্তার। তিনি নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার হরণী ইউনিয়নের বয়ারচর এলাকার মো. শরিফ উদ্দিনের স্ত্রী।

তিনি বলেন, স্বামী নদীতে কাজ করে। ঘরে পুরুষ কেউ নাই। জোয়ারের পানি আমাদের ঘরে প্রবেশ করেছে। প্রচণ্ড বৃষ্টি হচ্ছে। চৌকির ওপরে আশ্রয় নিয়েছি। প্রসব বেদনায় মনে হয়েছে আর বাঁচবো না। কেউ পাশে নেই। এক ধাত্রীর সহযোগিতায় আমার কন্যার জন্ম।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু আমার মেয়ে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের সময় জন্ম নিয়েছে তাই তার নাম রেখেছি সিত্রাং। কোথাও নেটওয়ার্ক নাই তাই কাউকে জানাতে পারি নাই সন্তানের কথা। আমার ৩টা ছেলের পর রাজকন্যা সিত্রাংয়ের জন্ম। জোয়ার নামলেও এখনো রাতের কথা মনে পড়লে শিউরে উঠি।

সিত্রাংয়ের নানি রাহেনা আক্তার  বলেন, ঘরের মধ্যে পানি ঢুকে গেছে। চৌকির ওপরে ধাত্রী আর আমার মেয়েকে উঠাইসি। আমরা চারপাশে পানির মধ্যে দাঁড়িয়ে ছিলাম। নদী ভাঙা লোক তাই কোথাও যাওয়ার জায়গা নাই।

সিত্রাংয়ের দাদি নুর জাহান বলেন, তুফানের দিন নাতিন হইসে। আমরা ডাক্তারের কাছে নিতে পারি নাই। নরমালে হইসে। বেড়ির কাছে থাকি আর কোথাও যাওয়ার জায়গা নাই। যদি সরকার নদী ভাঙনরোধে ব্যবস্থা নিতো তাহলে এখানে থাকতে পারতাম। নইলে আর জায়গা কিনের টাকা নাই।

হরণী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আখতার হোসাইন বলেন, আমি যখন খবর পেয়েছি তখন স্থানীয় ইউপি সদস্যকে তাদের বাড়িতে যেতে বলছি। তিনি বাড়িতে গিয়ে খোঁজ খবর নিয়েছেন। এই দুর্যোগে বাচ্চা প্রসবের পর বর্তমানে মা ও শিশু সুস্থ আছে। আমি তাদের সরকারি সহযোগিতা পৌঁছে দেব। সিত্রাং ও তার মা ফারজানার সুস্থতা কামনা করছি।

আপনার পছন্দের লিংকের মাধ্যমে সংবাদটি শেয়ার করুন, আমাদের সাথেই থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021
Design & Development By : JM IT SOLUTION