1. sarifhafiz48@gmail.com : livenewsdesk desk : livenewsdesk desk
  2. mehedihasan.mhs078@gmail.com : Arif Molla : Arif Molla
  3. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
  4. livenewsbd24@gmail.com : Mehedi Hasan : Mehedi Hasan
‘সাবধানে যাবি, তাড়াতাড়ি আসবি’ - Livenews24
বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কাপড় কিনতে ক্রেতা সেজে এসে কাপড় চুরি, ধরা পড়ে হলো জেল বিএনপি রাজনৈতিক দল নয়, পাকিস্তানের এজেন্ট: শেখ সেলিম ‘কৃষক আমাদের জাতির মেরুদণ্ড’- ড.আবদুস সোবহান গোলাপ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হলো ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে- শাজাহান খান আমার মনে হয় বিরোধীরা চোখ থাকতেও অন্ধ জানুয়ারি থেকে ব্যাংকে ডলার সংকট থাকবে না: সালমান এফ রহমান বিরামপুরে বিশ্ব এন্টিমাইক্রোবিয়াল সচেতনতা সপ্তাহ পালিত খবর প্রকাশের পর পলাশবাড়ীতে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরীর কারখানা ভেঙে গুড়িয়ে দিলেন প্রশাসন মেসির জন্য অপেক্ষা ও প্রার্থনা কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যানের সংঘর্ষ, বোমার আঘাতে ওসিসহ আহত ১০ সশস্ত্র বাহিনীর শহীদদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা সশস্ত্র বাহিনীর শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতির শ্রদ্ধা জাতির আস্থার প্রতীক হিসেবে গড়ে উঠেছে সশস্ত্র বাহিনী সশস্ত্র বাহিনী জাতির গর্ব ও আস্থার প্রতীক: রাষ্ট্রপতি

‘সাবধানে যাবি, তাড়াতাড়ি আসবি’

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৩৪ শেয়ার এবং সংবাদটি পড়েছেন।

অনলাইন ডেস্ক।।

দীপক চন্দ্র রায় ও ছন্দা রানীর সংসারে দুই মেয়ে ভূমিকা (১৫) ও বৃষ্টি (৮)। দীপক বোদা উপজেলার ধনিপাড়া-গাইঘাটা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বিএসসি শিক্ষক। থাকেন বোদা উপজেলা সদরের কলেজ পাড়ায়। রবিবার বোদা উপজেলার আউলিয়ার ঘাটে নৌকাডুবিতে তার দুই মেয়ের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার বৃষ্টির লাশ পাওয়া যায় আর ভূমিকার লাশ মঙ্গলবার উদ্ধার হয়। দুই মেয়ের মৃত্যুর শোকে মুহ্যমান স্বামী-স্ত্রী।

বাবা দীপক চন্দ্র রায় কাঁদো কাঁদো কণ্ঠে বলেন, রবিবার সকালে ভূমিকা যাওয়ার আগে বলেছিল ‘বাবা আমরা মায়ের সঙ্গে মহালয়ার অনুষ্ঠানে যাচ্ছি। তাড়াতাড়ি ফিরে আসব’। আমি বললাম, ‘সাবধানে যাবি, তাড়াতাড়ি ফিরে আসবি’– এটাই ছিল মেয়ের সঙ্গে শেষ কথা। ফিরে আসল ঠিকই কিন্তু লাশ হয়ে।

তিনি বলেন, ভূমিকা ছিল মেধাবী, পঞ্চগড় সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে নবম শ্রেণিতে পড়ত। ছোট বৃষ্টি স্থানীয় সানন্দা কিন্ডারগার্টেনে দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ত।

ভূমিকার স্কুলশিক্ষক শহিদুল ইসলাম জানান, ভূমিকা অত্যন্ত মেধাবী ছিল। এভাবে হারিয়ে যাবে ভাবতেই পারছি না।

দুই কন্যা সন্তান নিয়ে মা বরদেশ্বরী মন্দিরে যাচ্ছিল মহালয়ার অনুষ্ঠানে, ঘাট পার হওয়ার জন্য আর সবার মতো তারাও নৌকায় ওঠেন। মা  ভাগ্যক্রমে তীরে আসতে পারলেও চিরদিনের জন্য দুই মেয়েকে হারিয়ে ফেলেন। সোমবার বৃষ্টির লাশ পাওয়া যায় করতোয়ার ভাটিতে আর মঙ্গলবার পাওয়া যায় ভূমিকার লাশ।

ভূমিকাদের পড়শি অবসরপ্রাপ্ত কলেজশিক্ষক আব্দুর রশিদ বলেন, ‘ভোর হলে তাদের দেখা হতো, আংকেল আদাব বলত। ছোটবেলায় এদের অনেক কোলে নিয়েছি। ওদের বাবা-মাকে সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষা আমার জানা নেই। আউলিয়ার ঘাটে হয়তো একদিন সেতু ঠিকই হবে কিন্তু এই সম্ভাবনাময় জীবনগুলো আর ফিরে পাওয়া যাবে না।’

 

 

আপনার পছন্দের লিংকের মাধ্যমে সংবাদটি শেয়ার করুন, আমাদের সাথেই থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021
Design & Development By : JM IT SOLUTION