1. sarifhafiz48@gmail.com : livenewsdesk desk : livenewsdesk desk
  2. mehedihasan.mhs078@gmail.com : Arif Molla : Arif Molla
  3. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
  4. livenewsbd24@gmail.com : Mehedi Hasan : Mehedi Hasan
আব্বা মারা গেছইন আমরার কবরস্থান পানির নিচে জানাজাও পড়ছি নৌকার ওপর - Livenews24
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৯:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বিরামপুরে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে উজ্জ্বল নক্ষত্র লাবিবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব এভিয়েশন বিশ্ববিদ্যালয়ের সেশন ক্লাশ উদ্বোধন করলেন বিমান বাহিনী প্রধান। জামালপুরের শ্রীরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪ তলা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন দুর্নীতির বিরুদ্ধে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করার আহ্বান… জামালপুরে দুদকের তদন্ত কমিশনার যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছি সেটা বাস্তবায়ন করতে চাই: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে চাইঃ আইসিটি প্রতিমন্ত্রী মারা গেলেন শীর্ষ পর্যায়ে ফুটবল-ক্রিকেট খেলা একমাত্র স্কটিশ ঈদে তৌসিফ-কেয়া পায়েলের ‘ঝালফ্রাই’ হজে গিয়ে দশ বাংলাদেশির মৃত্যু সৌদি পৌঁছেছেন ৫০ হাজার ২১৮ হজযাত্রী করোনায় আরও ৫ মৃত্যু, শনাক্ত ১৮৯৭ মায়ের ‘না’, সবার মতামত শুনে সিদ্ধান্ত নেবেন ফাইয়াজের বাবা পানি বাড়ছে পদ্মা-যমুনায় সৌদি আরবে হাজিদের নিরাপত্তায় নারী সেনা ২০তম বার্ষিক সম্মেলনে কালকিনি প্রেসক্লাবের কমিটি- সভাপতি দুলাল, সা.সম্পাদক হাকিম

আব্বা মারা গেছইন আমরার কবরস্থান পানির নিচে জানাজাও পড়ছি নৌকার ওপর

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২১ জুন, ২০২২
  • ২৬ শেয়ার এবং সংবাদটি পড়েছেন।

অনলাইন ডেস্ক।

বন্যার পানিতে আশ্রয়হীন হয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এসে আশ্রয় নিয়েছে ইব্রাহিম মিয়া ও তার পরিবার। ঘরবাড়িও ভেসে গেছে পানিতে। এর মধ্যে আশ্রয়কেন্দ্রে শুরু হয়েছে শোকের মাতম। দীর্ঘদিন রোগে ভোগা ইব্রাহিমের বাবা আশরাফ আলী (৮৫) মারা গেছেন।

নৌকা না থাকায় বাবাকে নিতে পারেননি হাসপাতালে। একদিকে ঘরবাড়ি নেই, চারপাশে থইথই করছে পানি, অন্যদিকে বাবাকে হারিয়ে কী করবেন বুঝে উঠতে পারছিলেন না রিকশাচালক ইব্রাহিম। তাই বাবার মরদেহ পলিথিনে মুড়ে বক্সের ভেতর রেখে কবরস্থানে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রেখেছেন পাঁচ দিন ধরে। পানি নামলে মাটিতে শুইয়ে রাখবেন, এই আশায় আছেন তিনি।

বন্যার সময় সাধারণত কোনোভাবে মরদেহ দাফন করতে না পারলে পানিতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু নিজের বাবার মরদেহ বন্যার পানিতে ভাসিয়ে দেওয়ার সাহস হয়নি ইব্রাহিমের। তাই পলিথিন মুড়ে বাক্সবন্দি করতে হয়েছে তাকে।

এমন নির্মম ও হৃদয়বিদারক ঘটনা সুনামগঞ্জ শহরতলির সুরমা ইউনিয়নের ইব্রাহিমপুর গ্রামে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা ইব্রাহিম জানান, গত ১৭ জুন (শুক্রবার) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় তার বাবা মারা যান। সর্বত্র বন্যার পানি থাকায় নিজের বাবার মরদেহ দাফন করতে না পারায় বাক্সবন্দি করে রেখেছেন।

ইব্রাহিম বলেন, আব্বা মারা গেছইন। আমরার কবরস্থান পানির নিচে। জানাজাও পড়ছি নৌকার ওপর। আমরা অসহায় হয়ে গেছি। এখন বসে আছি কখন পানি কমবে আর লাশ দাফন করতে পারব।

একই গ্রামে একই দিন মৃত্যু হয় সাজুর মিয়ার। তিনি ঢাকা থেকে সুনামগঞ্জ আসার পথে মারা যান। বন্যার খবর শোনার পর তিনি নাতিকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন বাড়ি থেকে। পথে ছাতকের গোবিন্দগঞ্জ বন্যার কারণে আটকে যায় তাদের গাড়ি। পরে সেখানেই স্ট্রোক করে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি।

মোবাইল নেটওয়ার্ক না থাকায় এক সিনজি অটোরিকশার চালকের মাধ্যমে বাড়িতে খবর পাঠানো হয়। পরে মৃত সাজুর মিয়ার মেয়েজামাই ছালাতুল নৌকাযোগে শ্বশুরের লাশ নিয়ে গ্রামে আসেন।

এখন পাশাপাশি বাক্সবন্দি হয়ে পড়ে আছেন সাজুর মিয়া ও আশরাফ আলী। মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত আশরাফ আলীর বাক্সের নিচে কিছুটা মাটি দেখা গেলেও পানির ওপরে ভাসছে সাজুর মিয়ার মরদেহ থাকা বাক্স।

ছয় দিন ধরে পুরো জেলা ডুবে আছে পানির নিচে। ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট, বাজার এমনকি উঁচু কবরস্থানও পানির নিচে ডুবে আছে। পা রাখার এতটুকু জায়গা নেই। মানুষের বাড়িঘরে গলা পর্যন্ত পানি। এই পরিস্থিতিতে আরও বিপদ হয় কেউ মারা গেলে। কারণ, মরদেহ দাফনের কোনো উপায় থাকে না।

এলাকাবাসী জানান ,বন্যার সময় কবর পানির নিচে ডুবে যাওয়ায় মরদেহ দাফন করা যায় না। তাই হাওর এলাকার কবরগুলো উঁচু করার উদ্যাগ নেওয়া খুব প্রয়োজন। অন্তত কবরগুলো যদি উঁচুতে থাকে, তাহলে শেষ সময়ে একমুঠো মাটি পড়বে লাশের ওপর।

গ্রাম পুলিশ আসকর আলী বলেন, এমন ভয়াবহ বন্যা আমরা কেউ জীবনে দেখিনি। বন্যার কারণে লাশ নিয়ে বসে আছি পাঁচ দিন ধরে। বাক্সের ভেতর ভরে রেখেছি। এখনো আছে।

মৃত আশরাফের মেয়ে রেজিয়া বেগম বলেন, আমরা ঘরে পানি থাকায় স্কুলে আসছিলাম। স্কুলে এসে আব্বা মারা যান। কোনো উপায় না পেয়ে এখন এক বোনের বাসায় আশ্রয় নিয়েছি।

মৃত সাজুর ইসলামের জামাতা সালাতুল ইসলাম বলেন, দুদিন ধরে আমার শ্বশুর আর ছেলের খোঁজ পাই না। পরে একজন এসে খবর দেয় আমার শ্বশুর মারা গেছেন। ঘরবাড়ি সব ফেলে নৌকা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছুটে যাই গোবিন্দগঞ্জ। সেখান থেকে লাশ এনে এখন বক্সের ভেতর ভরে রেখেছি। পানি কমলে মাটি দেব।

আপনার পছন্দের লিংকের মাধ্যমে সংবাদটি শেয়ার করুন, আমাদের সাথেই থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021
Design & Development By : JM IT SOLUTION